এমপি আনার হত্যা মামলায় গ্রেফতার গ্যাস বাবুকে নিয়ে ঝিনাইদহে ডিবি প্রধান, আলামত উদ্ধার অভিযান

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার জেলা আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যান সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে নিয়ে হত্যার আলামত ও মোবাইল উদ্ধারে অভিযান চলিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঝিনাইদহ জেলা কারাগার থেকে কাজী কামাল আহমেদ বাবুকে নিয়ে কঠোর নিরাপত্তায় পুলিশের একটি প্রিজন ভ্যান ঝিনাইদহ শহরে পৌছায়। পরে তাকে পায়রা চত্বর সংলগ্ন গাঙ্গুলি হোটেলের পেছনে একটি পুকুরের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। এসময় পুকুর পাড়ে দাড়িয়ে বাবুর সাথে কথা বলেন পুলিশ ও ডিবি কর্মকর্তারা। এরপর মাছ ধরার জেলেদেরকে পুকুরে নামিয়ে দেওয়া হয়। এসময় চারিদিকে হাজার হাজার উৎসুক জনতার ভিড় দেখা যায়।

এর কিছুক্ষণ পরে ঘটনাস্থলে আসেন ডিবি প্রধান হারুন অর রশিদ। এসময় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিএমপির সহকারী কমিশনার মাহাফুজুর রহমান, ঝিনাইদহ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফারুক আযম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইমরান জাকারিয়া, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) মীর আবিদুর রহমান, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন উদ্দিনসহ পুলিশের পদস্থ কর্মকর্তরা উপস্থিত ছিলেন।
সেসময় ঝিনাইদহ শহরের পিপিলিকা মার্কেটের সামনে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন ডিবি প্রধান হারুন। দুপুর ১২.৪৮ মিনিটে দেওয়া ব্রিফিংয়ে ডিবি প্রধান হারুন আর রশীদ বলেন, মামলার সকল আসামীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলমান আছে। ৫ জন গ্রেপ্তার হয়েছে, বাকি দুইজনকে গ্রেপ্তারে বর্তমানে অভিযান চলমান। আজ ঝিনাইদহে গ্যাস বাবুকে নিয়ে আলামত উদ্ধার অভিযান চলছে। যে মোবাইলে তিনি শিমুল ভুইয়ার সাথে ছবি বিনিময় ও কথোপকথন করেছিলেন সেটি উদ্ধারের জন্য অভিযান চলছে। এই মোবাইল পাওয়া গেলে অনেক তথ্যই বেরিয়ে আসবে। ডিবি পুলিশ আন্তরিকতার সাথে তদন্ত করছে । তিনি আরো বলেন, আমরা ভালো মানুষকে হয়রানি করবো না। তবে অভিযুক্ত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।
ব্রিফিং শেষে পরে ঝিনাইদহ বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্টেডিয়ামের পাশের আরেকটি পুকুরে মোবাইল উদ্ধারে অভিযান চালানো হয়।


এর আগে মঙ্গলবার কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ঝিনাইদহ কারাগারে আনা হয় গ্যাস বাবুকে। এদিন বিকাল ৪ টার দিকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের একটি প্রিজন ভ্যানে করে তাকে ঝিনাইদহে নিয়ে আসা হয়। অভিযানকে ঘিরে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ঝিনাইদহ শহর ও আশপাশের এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।
উল্লেখ্য,  গত ১২ মে দুপুরে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার চুয়াডাঙ্গা সীমান্তের গেদে বর্ডার দিয়ে ভারত যান। সেখানে পৌছে পশ্চিমবঙ্গে বরাহনগর থানার অন্তর্গত মন্ডলপাড়া লেনে গোপাল বিশ্বাস নামে পরিচিত এক ব্যক্তির বাড়িতে ওঠেন। পরের দিন ১৩ মে ডাক্তার দেখানোর জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। ১৫ মে বরাহনগরের বাসিন্দা গোপাল বিশ্বাসের হোয়াটস এ্যাপে ম্যাসেজ করে জানান তিনি দিল্লি যাচ্ছেন। ১৬ মে এমপির ব্যক্তিগত সহকারী অব্দুর রউফ ও গাড়ি চালক তরিকুল ইসলামের ব্যক্তিগত মুঠোফোনেও একটি ম্যাসেজ পাঠিয়ে জানান দিল্লি যাওয়ার কথা। এরপর থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যান আনোয়ারুল আজিম আনার। তাকে ফোনে বা কোনো মাধ্যমে না পেয়ে বিষয়টি সরকারের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে জানান উদ্বিগ্ন এমপি পরিবার। এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারের সাথে যোগাযোগ করতে না পেরে ১৮ মে থানায় একটি মিসিং ডাইরি করেন এমপি’র পরিচিত ভারতের বরাহনগরের বাসিন্দা গোপাল বিশ্বাস। ২২ মে বুধবার সকালে কলকাতার নিউটাউন এলাকার অভিজাত আবাসন সঞ্জিভা গার্ডেনে তাকে খুন করা হয়েছে বলে ভারতীয় গণমাধ্যম থেকে জানা যায়। এমপি খুনের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত ৭ জনকে আটক করেছে দুই দেশের পুলিশ। আটকদের স্বীকারুক্তিতে জানায় আনারকে কেটে টুকরো টুকরো করে নৃশংসভাবে খুনের বর্ননা পওয়া গেলেও এখনো পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য কোন আলামত উদ্ধার করতে পারেনি ভারতীয় পুলিশ ও গোয়েন্দারা।  আনার টানা তিনবারের সংসদ সদস্য (এমপি) ও কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *