নির্বাচক হওয়ার পথে রাজ্জাক-নাফীস

বাংলাদেশের ক্রিকেটের অন্যতম অগ্রপথিক আব্দুর রাজ্জাক। তার ঘূর্ণি জাদুতে একপেশে অনেক ম্যাচই জিতেছে বাংলাদেশ। জাতীয় দল থেকে অনেক আগেই অবসর নিলেও, ঘরোয়া লীগ খেলে যাচ্ছিলেন অনেক দিন যাবত। ঘুরে ফিরে তাকে বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ডের সাথে সংযুক্তির কথা উঠলেও, এবার নির্বাচক হিসেবে জাতীয় দলে যোগ দিতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের ইতিহাসের সফলতম সীমিত ওভারের বোলার তিনি।

বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় দলের নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশার। নির্বাচক হিসেবে দুজনের উপর চাপ কমাতে আরেকজন নির্বাচকের কথা উঠেছে ক্রিকেট বোর্ডে। সে কারণে গতকাল এ বিষয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছে ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি। সেই আলোচনায় উঠে এসেছে মূলত দুটি নাম—আব্দুর রাজ্জাক ও শাহরিয়ার নাফীস। এর মধ্যে রাজ্জাককে প্রথমে বিবেচনা করা হবে। তিনি ‘না’ বললে নাফীসের দিকে যাবে আলোচনা।

সভার পর ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান বলেছেন, ‘আমরা বিবেচনা করছি দুজনের কথা। রাজ (রাজ্জাক) ও শাহরিয়ার নাফীস বিবেচনায় আছে। এর মধ্যে রাজের সঙ্গে একটু কথা হয়েছে। চূড়ান্ত আলাপ হয়নি। ও যদি সবকিছু মেনে রাজি হয়, তাহলে হয়তো সে দায়িত্বটা পাবে।’ রাজ্জাক বললেন, তিনি এমন একটা কানাঘুষা শুনেছেন। কিন্তু সিরিয়াস কোনো আলাপ হয়নি। এদিকে আকরাম বলেছেন, নির্বাচক হতে চাইলে খেলা ছেড়ে দিতে হবে। রাজ্জাক খেলা ছাড়বেন কি না, এ ব্যাপারেও মন্তব্য করতে চাইলেন না, ‘আমি আসলে এখনই মন্তব্য করতে চাচ্ছি না। আকরাম ভাইদের সঙ্গে চূড়ান্ত কোনো কথা হলে আমি সিদ্ধান্ত নিতে পারব।’

ওদিকে নারী দলের নির্বাচক হিসেবে সুপারিশ করা হয়েছে সাবেক পেসার মঞ্জুরুল ইসলামের নাম।
এদিকে বিসিবির উইমেন্স উইংয়ের চেয়ারম্যান শফিউল ইসলাম চৌধুরী নাদেল বলেছেন, তারা নারী দলের নির্বাচক হিসেবে মঞ্জুর নাম সুপারিশ করেছেন। এখন বিসিবির অনুমোদনের অপেক্ষা।

Spread the love

স্পোর্টস ডেস্ক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিপক্ষে জাতিসংঘ

শুক্র অক্টো ১৬ , ২০২০
জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচলেট শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ধর্ষণ জঘন্য অপরাধ হওয়া সত্ত্বেও এতে মৃত্যুদণ্ড দেয়া যথাযথ কোনও শাস্তি নয়; যেমনটা বৃহস্পতিবার বাংলাদেশে হয়েছে। বাংলাদেশে ধর্ষণের অপরাধে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডের অধ্যাদেশ এবং প্রথমবার পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ডের রায়ের পর এতে আপত্তি জানিয়ে এমন মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের এই কর্মকর্তা। বার্তা […]