মিঠাপুকুরে গৃহবধূকে হত্যার পর ডাকাতি, প্রধান আসামি গ্রেফতার

রংপুরের মিঠাপুকুরে গৃহবধূকে হত্যার পর ডাকাতির ঘটনার প্রধান আসামি জাকির হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
ঘটনার চার মাস পর শুক্রবার (৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে রংপুরের বদরগঞ্জ থানাধীন কুতুবপুর ইউনিয়নের নাগেরহাট বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেপ্তার জাকির দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ থানার কুশদহ মাদ্রাসাপাড়া গ্রামের মৃত শহিদুল ইসলামের ছেলে।
শনিবার (৮ জুন) বেলা ১২ টায় প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান মোঃ তরিকুল ইসলাম অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ), রংপুর(পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত)।
পুলিশ সুপার আরও জানান, গত ৬ ফেব্রুয়ারি দিনগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে মিঠাপুকুর থানাধীন বড়বালা ইউনিয়নের শালিকাদহ গ্রামের মৃত মোহাম্মদ হোসেন সরকারের ছেলে আবু রায়হান মো. মিজানুর রহমানের বাড়িতে একটি খুনসহ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। মুখোশধারী ৬/৭ জনের একদল ডাকাত বাড়ির প্রাচীর টপকে ভেতরে ঢুকে এলোপাথাড়ি মারপিট করে মিজানুরের স্ত্রী মোর্শেদা বেগম সুইটির (৩২) মাথায় আঘাতের পর তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে।
এসময় ডাকাতদল মিজানুরকে মারপিট ও মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন, নগদ টাকা, জমির দলিলসহ প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকার মালামাল
লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় পরের দিন আবু রায়হান মো. মিজানুর রহমান বাদী হয়ে থানায় দায়ের দায়ের করেন। মামলা দায়েরের ছয় দিনের মাথায় অভিযান চালিয়ে খুনসহ ডাকাতির ঘটনায় জড়িত দুই আসামি এবং পরবর্তীতে আরও পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ । যার মধ্যে তিনজন আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী দেন।
পুলিশ সুপার জানান, মামলার প্রধান অভিযুক্ত পেশাদার দুর্ধর্ষ ডাকাত জাকির হোসেন ঘটনার পর থেকে গ্রেপ্তার এড়িয়ে পালিয়ে ছিলেন। ঘটনার চার মাস পর তদন্তকারী কর্মকর্তা নুর আলম সিদ্দিকের চেষ্টায় শুক্রবার সন্ধ্যায় অভিযান চালিয়ে জাকিরকে গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেফতার জাকিরের বিরুদ্ধে মিঠাপুকুর, বদরগঞ্জ ও নবাবগঞ্জ চুরি, ডাকাতি ও মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধের নয়টি মামলা রয়েছে বলেও জানান পুলিশ সুপার।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *